মোবাইল ফোন যাচাই পদ্ধতি

যাচাই পদ্ধতি

আমাদের প্রাত্যহিক জীবণে মোবাইল ফোন একটি অপরিহার্য মাধ্যম, আর যদি সেটি হয় স্মার্টফোন। এই অপরিহার্য জিনিষটি গ্রহনের সময় পরীক্ষা করা অপরিহার্য। প্রথমে আমরা ফোনের ডিভাইসটি পরীক্ষা করে দেখি এবং সিম কার্ডের ভিতরে আমাদের পরিচিত অ্যাপগুলি ব্যবহার করে থাকি। 

আমরা বাস্তবে যে বিষয়গুলো পরীক্ষা করে থাকি, যেমন-ফোন কল, বন্ধুদের সাথে টেক্সট করা, ছবি ধারণ করা, গেম খেলা, গান শোনা , খবর পড়া এবং বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য সমুহ ডাউনলোড করা যা প্রয়োজনে ব্যবহার করা হয়।

এছাড়াও আমরা চারটি নির্দিষ্ট এলাকায় ঘনিষ্ঠভাবে মনোযোগ দিয়ে থাকি, যেমন- ফোনের ডিজাইন যাচাই করি,হাতে ধরে রাখতে ভালো লাগছে কিনা?, এটা সাথে রাখা সহজ নাকি ঝামেরাযুক্ত? ফোনে কোন ধরনের পোর্ট আছে এবং হেডফোন সঠিকভাবে কাজ করছে কিনা। বর্তমানে যে ধরনের ফোনগুলো বাজারজাত করা হচ্ছে তা আকারে বড় হওয়ার কারনে ফোনের আকারটিও বিবেচনায় নেওয়া হচ্ছে।

ফোনের সক্ষমতা যাচাই এর ক্ষেত্রে এর ডিসপ্লে, সফটওয়্যার এমনকি কানেক্টিভিটিও যাচাই করে দেখা হয়। কর্মক্ষমতা মানসম্মত করার জন্য আমরা প্রতিটি স্মার্টফোনে বেঞ্চমার্ক ব্যবহার করেছি, এবং যাচাই পদ্ধতি শেষে আমরা ধাপে ধাপে ব্যটারী ও অনান্য যন্ত্রাদি  ডিভাইসে স্থাপন করে থাকি । ফোনে ব্যাটারি ও যন্ত্রাদি পতিস্থাপনের পর কলইন এবং কলআউটে কোন প্রকার ব্যঘাত ঘটছে কিনা । সংযোগের সাথে, আমরা বিভিন্ন পরিস্থিতিতে সেলুলার এবং ওয়াই-ফাই উভয়ই পরীক্ষা করেছি।

ফোনের ক্যামেরাকে ক্রেতার ব্যবহার উপযোগ করার মধ্য দিয়ে আমরা সেগুলিকে আপনার মতো ব্যবহার করার চেষ্টা করেছি। রাতে এবং দিনের বেলায় স্বচ্ছ ছবি ধারনের জন্য সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ পোর্ট্রেট মোড পরীক্ষা করা হয় এবং ছবি তুলতে কত সময় লাগছে সেটিও যাচাই করে দেখা হয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *